আপনার মতামতই

প্রধান বিষয়। আপনি কে, কোথায় থাকেন অথবা আপনি কোন পটভূমি থেকে এসেছেন, এগুলো কোনো বিষয়ই নয়। আপনি যদি একজন ক্রেতা হন, তাহলে আপনি পেইড সার্ভেগুলো করতে পারেন। এগুলো আপনাকে আপনার মতামত জানাতে দেয় আর তার সাথে আপনি যা চিন্তা করেন তার জন্য আপনাকে টাকাও দেয়।


অনলাইন পেইড সার্ভেগুলোর - তথ্য

আপনি যদি সাম্প্রতিক পণ্য ও পরিষেবাগুলো সম্বন্ধে আপনার মতামত জানাতে চান, তাহলে আপনার অতিরিক্ত সময়ে অনলাইন পেইড সার্ভেগুলো করে টাকা রোজগার করা হয়তো আপনার জন্য মজার ব্যাপার হবে।

অনলাইন পেইড সার্ভেগুলো করা, অনলাইনে টাকারোজগার করার এক রোমাঞ্চকর ও বৈধ উপায় হিসেবে প্রমাণিত হয়েছে। মার্কেট রিসার্চ কোম্পানীগুলোর কাছে এমন অনেক প্রশ্ন থাকে যেগুলোর তারা উত্তর পেতে চায় আর তারা আপনাকে সেই প্রশ্নগুলোর উত্তর দেওয়ার জন্য টাকা দেবে। এর ফলে তারা তাদের নিজস্ব পণ্য ও পরিষেবা সংক্রান্ত আরও ভালো মার্কেটিং করার সিদ্ধান্তগুলো নিতে পারবে। বাজারে আসার আগেই আপনি নতুন পণ্যগুলো দেখতে পারেন এবং ওই পণ্যগুলোকে কিভাবে আরও ভালো করা যায় সেবিষয়ে আপনার মতামত জানাতে পারেন আর এর জন্য আপনাকে টাকাও দেওয়া হবে। এটার জন্য আপনার সময়ের কয়েক মিনিট ব্যায় করা হয়তো খুব একটা মন্দ হবে না।

আপনাকে হয়তো একটা নতুন মুভি ট্রেলার রিভিউ করতে, কোন ধরনের পিনাট বাটার আপনি পছন্দ করেন তা জানাতে অথবা যে রেস্তোঁরাতে আপনি প্রায়ই যান তার নাম বলতে বলা হতে পারে। বার্বিকিউ গ্রীল থেকে শুরু করে চিকিৎসা সংক্রান্ত প্রশ্ন, যন্ত্রপাতি থেকে শুরু করে কাল রাতে আপনি কি খেয়েছিলেন সবই জিজ্ঞেস করা হতে পারে।

নির্দিষ্ট বয়স, পেশা, শখ এবং আগ্রহ অনুসারে সাইটগুলো রয়েছে। সার্ভেগুলো খুবই আগ্রহজনক আর তাদের পণ্যগুলোকে কোন আকার দিলেবা কিভাবে পেশ করলে আরও ভালো হবে তা জানার জন্য কোম্পানীগুলো আপনার মতামত জানতে চায়। যখন কোনো কোম্পানী তাদের ক্রেতাদের পছন্দ কেমন ও তাদের চাহিদা কি তা জানতে চায়, তখন তারা কোনো দ্বিতীয় সংস্থার সঙ্গে কন্ট্রাক্ট সই করে যারা পণ্য ও পরিষেবা সম্বন্ধীয় বিষয়ে ক্রেতাদের কেনাকাটার অভ্যাস ও মতামত নিয়ে থাকে। আর এখানেই পেইড সার্ভেগুলো কাজ করে থাকে।

পেইড সার্ভেগুলো বড় ধরনের ব্যবসায়ে পরিণত হয়েছে। এগুলো এত জনপ্রিয় কেন? কারণ এগুলো লোকদেরকে তাদের মতামত জানাতে দেয় আর তারই সাথে তারা যা মনে করে তার জন্য তাদেরকে টাকাও দিয়ে থাকে। এই চমৎকার ব্যাপারটা ঘটার কারণ হল ইন্টারনেটের আধিক্য এবং অনলাইন পেইড সার্ভেতে অংশ নেওয়ার মাধ্যমে সবচেয়ে সহজে ঘরে বসে কাজ করা।

অনলাইন সার্ভেগুলো ক্রমাগত জনপ্রিয় হয়েছে, কারণ এগুলো অংশগ্রহণকারীদের জন্য ও মার্কেট রিসার্চ কোম্পানীগুলোর জন্য সুবিধাজনক। প্রচুর লোকেরা এতে অংশ নিচ্ছে কারণ এটা সহজ, মজার আর মাসের শেষে ঘরে বসে পে-চেক পাওয়াটাও আনন্দের। ছাত্র-ছাত্রীদের জন্য, বাড়িতে থাকেন এমন বাবা-মায়ের জন্য, অবসরপ্রাপ্ত ব্যক্তিদের জন্য অথবা অতিরিক্ত আয় করতে চান এমন যে কারোর জন্য এটা এক্কেবারে উপযুক্ত সুযোগ।আপনি কে, কোথায় থাকেন অথবা আপনি কোন পটভূমি থেকে এসেছেন এগুলো কোনো বিষয়ই নয়। আপনি যদি একজন ক্রেতা হন, তাহলে আপনি পেইড সার্ভেগুলো করতে পারেন। প্রত্যেকেই স্বাগত। মনে রাখবেন: আপনার মতামতই প্রধান বিষয়!

অনলাইন পেইড সার্ভেগুলো কোথায় পাওয়া যাবে?

পেইড সার্ভগুলো থেকে আয় করার জন্য সেকসানে যান পেইড সার্ভেগুলো - রেজিস্ট্রেশন আর আমাদের দেওয়া অনলাইন পেইড সার্ভে সাইটগুলোর লিস্ট দেখুন আর যোগ দিন।
আপনি লিস্টে দেওয়া প্রোগ্রামগুলোতে অংশ নিতে পারেন আর নিশ্চিত থাকতে পারেন যে আপনাকে নগদ টাকা দেওয়া হবে অথবা অন্য কোন পুরস্কার দেওয়া হবে যার মধ্যে কোনো লুকানো শর্তাবলী নেই এবং আপনাকে এক পয়সাও খরচ করতে হবে না।লিস্টের অধীন সব কোম্পানীগুলোই যোগ দেওয়ার যোগ্য আর প্রত্যেকেরই সুনাম রয়েছে। আমরা আমাদের লিস্টে শুধুমাত্র উত্তম মান সম্পন্ন অনলাইন মার্কেট রিসার্চ কোম্পানীর নামগুলোই রেখেছি যারা কখনো কোনো পারিশ্রমিক দাবি করে না আর পৃথিবীর সব জায়গা থেকেই সদস্য নিয়ে থাকে।

  

সুপারিশকৃত নামের তালিকা

পেইডভিউপয়েন্টের পেটেন্ট-পেন্ডিং ট্রেইটস্কোরএসএম সিস্টেম আবিস্কার করা হয়েছিল যাতে সার্ভের উত্তরদাতার অকপটতা ও সংগতি বোঝা যায় আর তাদের প্রাপ্য তাদেরকে দেওয়া যায়।

মূল্যবান পরামর্শ

যারা এই সার্ভের কাজ নিয়ে থাকে তারা সবচেয়ে বড় যে সমস্যার মুখোমুখি হয় তা হল, তারা নিজেরাই এই প্রক্রিয়া সম্বন্ধে সঠিকভাবে জানেন না। এখানে কিছু পরামর্শ দেওয়া হল যা আপনাকে পুরস্কার পেতে এবং একজন অনলাইন সার্ভে প্যানেলিস্ট হতে সাহায্য করবে। আপনার অনলাইন সার্ভের কাজ থেকে সর্বোত্তমটা পেতে এই চমৎকার পরামর্শগুলোকে কাজে লাগান।

মূল্যবান পরামর্শ-একজন অনলাইন প্যানেলিস্ট হিসেবে তারা আপনাকে পুরস্কার পেতে সাহায্য করবে
এটা করা অনলাইন সার্ভেগুলোতে অংশ নেওয়ার ক্ষেত্রে আপনার আমন্ত্রণ পাওয়ার সুযোগ বাড়িয়ে দেবে। বেশি সার্ভে করার মানে বেশি টাকা রোজগারের সুযোগ। প্যানেলিস্টরা কেবল একটা বা দুটো রিসার্চ কোম্পানীতেই রেজিস্ট্রেশন করে থাকেন-এক্ষেত্রে এমন কোন নিয়ম নেই যা বলে যে, একজন ব্যক্তি একের বেশি অনলাইন সার্ভে কোম্পানীতে রেজিস্ট্রেশন করতে পারবেন না। তাহলে কেন নিজেকে আটকে রেখেছেন?
কিছু লোক ভেবে নেন যে, যেহেতু তারা একটা সার্ভে কোম্পানীর অনলাইন রেজিস্ট্রেশন ফর্ম পূরণ করেছেন তাই তারা সেই কোম্পানীর প্যানেলিস্টস ডেটাবেসের অংশ হয়ে গিয়েছেন। এটা একেবারেই ভুল চিন্তা। অনেক মার্কেট রিসার্চ কোম্পানী চায় যে, তাদের সম্ভাব্য প্যানেলিস্টরা মার্কেট রিসার্চ কোম্পানীর কাছ থেকে পাওয়া ই-মেলের মধ্যে থাকা একটা বিশেষ হাইপারলিঙ্কে ক্লিক করার দ্বারা তাদের নিজেদের ই-মেল অ্যাড্রেস যাচাই করুন। হাইপারলিঙ্কে ক্লিক করা ও কারোর ই-মেল অ্যাকাউন্ট যাচাই করা রেজিস্ট্রেশন প্রক্রিয়ার এক গুরুত্বপূর্ণ ও শেষ ধাপ।
অনলাইন সার্ভের আমন্ত্রণ ই-মেলের মাধ্যমে পাঠানো হয়ে থাকে। তাই যদি একটা ই-মেল কখনোই চেক না করা হয়ে থাকে, তাহলে কিকরে একজন সার্ভেতে অংশ নেওয়ার এবং টাকা রোজগার করার আশা করতে পারেন? সপ্তাহে অন্তত দুবার ই-মেল অ্যাকাউন্ট চেক করা দরকার, কিন্তু আশা করা হয় যে প্রত্যেকদিনই তা চেক করা হবে। এটা করার দ্বারা নিশ্চিত হওয়া যায় যে, সার্ভের আমন্ত্রণগুলো পাওয়া গিয়েছে আর সেগুলো বাতিল হওয়ার আগেই পড়া হয়েছে।
কনজিউমার রিসার্চ কোম্পানীগুলো আপনার সম্বন্ধে আরও জানতে চায়, যাতে তারা আপনাকে সঠিক সার্ভেগুলো দিতে পারে। তাই এটা করার জন্য অনেক সার্ভেসাইট অনুরোধ করে যাতে আপনি প্রোফাইল সার্ভে পূরণ করেন। এমনকি যদিও এগুলো সাধারণত পেইড সার্ভে নয়, তবুও এগুলো আপনাকে আরও বেশি টাকা দেয়, এমন পেইড সার্ভেগুলো পাওয়ার সুযোগ করে দেয়। এটা একজন দায়িত্ববান সার্ভে কর্মী হিসেবে আপনার প্রতিশ্রুতিকেও প্রকাশ করে। আপনি কি ধরনের এবং কতগুলো সার্ভের আমন্ত্রণ পাবেন তা ঠিক করার ক্ষেত্রে যেহেতু আপনার “প্রোফাইল” খুবই গুরুত্বপূর্ণ একটা বিষয় তাই এখানে “ভালো” বা “মন্দ” প্রোফাইল বলে কিছু নেই। সাধারণভাবেই প্রত্যেকের একটা আলাদা প্রোফাইল রয়েছে যেমন পৃথিবীর প্রত্যেক ব্যক্তির মধ্যেই অল্পবিস্তর ফারাক রয়েছে। আপনি বিবাহিত না অবিবাহিত, কোনো কাজ করেন অথবা ঘরে বাচ্চাদের সঙ্গে থাকেন, পড়াশোনা ছেড়ে দিয়েছেন না মাস্টার ডিগ্রী নিয়ে পাশ করেছেন এগুলো কোনো ব্যাপারই নয়-কারণ মার্কেট রিসার্চ কোম্পানী আর যারা তাদের সঙ্গে কন্ট্রাক্ট করেছে, তাদের কাছে প্রত্যেক ব্যক্তির মতামতটাই আসল বিষয়।
আপনি যদি মনে করেন যে একটা সামান্য পরিবর্তন রয়েছে, তাহলেও আপনার প্রোফাইলে তা আপডেট করুন। যে কোম্পানীগুলো পেইড সার্ভে দিয়ে থাকে, তারা যেহেতু আপনাকে আপনার সার্ভেগুলো পূরণ করার জন্য টাকা দেয় তাই তাদের আশা করার একটা সীমা রয়েছে। আপনি যদি সেই সীমায় না পৌঁছান তাহলে তারা আপনাকে আপনার তথ্যের জন্য টাকা দেবে না। এইজন্য পেইড সার্ভের দুনিয়ায় আপনার প্রোফাইল ও তথ্যগুলো আপ টু ডেট রাখা একান্ত প্রয়োজন।
সার্ভেগুলো শুধু পূরণ করাই আপনাকে আয় এনে দেবে না, প্রায়ই নিস্ক্রিয় প্যানেলিস্টদেরকে ডেটাবেস থেকে সরিয়ে ফেলা হয়, তাই অনেকগুলো সার্ভে পূরণ করা থেকে বিরত হবেন না।
যদি কোনো সার্ভে কোম্পানীর ওয়েবসাইটে তাদের সুরক্ষা নিতী থাকে তাহলে সেখানে সম্ভব উল্লেখ করা থাকবে যে প্যানেলিস্টের যোগাযোগের তথ্য শুধুমাত্র তার প্রাপ্য টাকা পাঠানোর জন্য ব্যবহার করা হবে-প্রকৃতপক্ষে এই সার্ভেতে যারা অংশ নেন তাদের নাম গোপন রাখা হয়। রেজিস্ট্রেশনের সময় আপনি যদি ভুল যোগাযোগের তথ্য দেন তাহলে কোনো টাকা পাওয়ার আশা করবেন না।
নিশ্চিত হোন যে আপনি এই অ্যাকাউন্টের জন্য সমস্ত স্প্যাম ফিল্টার বন্ধ করেছেন। প্রায়ই, সার্ভেগুলো স্প্যাম ফিল্টারকে সক্রিয় করে, ফলে আপনি হয়তো কখনো জানতেই পারবেন না যে, কেউ আপনাকে অংশ নিতে আমন্ত্রণ জানিয়েছেন। আপনার ই-মেল অ্যাড্রেসের রক্ষণাবেক্ষণ করুন-এটাকে ভুলে যাবে না বা হারিয়ে ফেলবেন না। এটাকে রক্ষা করুন-আপনি ই-মেল খুলতে পারছেন না মানেই আপনি বিপদে পড়েছেন...আপনার ই-মেল অ্যাড্রেস যে খুবই গুরুত্বপূর্ণ তা কখনো ভুলে যাবেন না।
আপনার আয়ের সম্ভাবনা বেড়ে যায় যখন আপনি আপনার বন্ধুদের এসম্বন্ধে জানান। অনেক সাইটের নিজস্ব প্রোগ্রাম রয়েছে তাই সেগুলোতে যোগ দিতে ইতস্ততঃ করবেন না। যতবেশিলোককে আপনি আমন্ত্রণ জানাত সক্ষম হবেন ততবেশি আপনি আয় করবেন।
আবেদন করার সময় দিন-ক্ষণ সম্বন্ধীয় সম্পূর্ণ তথ্য দিন। নিজেকে একজন ২৪ বছর বয়সি মহিলা সাজানোর চেষ্টা করবেন না যখন আপনি আসলে একজন ৩৫ বছর বয়সি পুরুষ। এই কোম্পানীগুলোর জাঙ্ক ফিল্টারও রয়েছে আর তারা এই ভুয়ো ব্যাপারটা মুহুর্তের মধ্যেই ধরে ফেলতে পারে।
যখন কোনো সার্ভে প্রশ্নাবলীর মধ্যে একটা ফাঁকা কমেন্ট বক্স থাকে, যেটা আপনাকে কোনোকিছুর ওপর মন্তব্য করতে বলে-তখন যতবেশি সম্ভব বিস্তারিত তথ্য দিন।
...যেটাতে আপনি পয়েন্ট, কুপন বা ড্রইংগুলো পাবেন, সেগুলোকে পূরণ করুন। প্রায়ই বিভিন্ন কোম্পানী এগুলোকে যোগ্য ব্যক্তি নির্বাচনের জন্য ব্যাবহার করে থাকে। সেগুলোকে পূরণ করার দ্বারা আপনি দেখান যে অংশ নেওয়া আপনার কাছে কতটা গুরুত্বের বিষয় আর এর ফলে আপনি টাকা দেওয়ার প্রতিশ্রুতিসহ আমন্ত্রণগুলো পাওয়ার সুযোগ বাড়িয়ে তোলেন।
...যেগুলো আপনাকে অনলাইন সার্ভেগুলো করার জন্য টাকা দেওয়ার প্রতিশ্রুতি দেয় অথচ আপনি আয় করার আগেই আপনার কাছে “মেম্বারশিপ” ফি চায়। একজন সার্ভে প্যানেল হওয়ার জন্য আপনার টাকা দেওয়ার কোনো কারণই নেই আর এইরকম অনেক অফারই ভুয়ো।
রেজিস্ট্রেশন করতে শুরু করার পর কয়েক ঘন্টা থেকে শুরু করে কয়েক দিনের মধ্যে সার্ভের কাজ পেয়েছে। কিন্তু মনে রাখবেন যে, অনেক কোম্পানী এক মাসে মাত্র কয়েকটি সার্ভেই পাঠিয়ে থাকে, তাই প্রচুর সার্ভে পাওয়ার আগে কয়েক সপ্তাহ ধরে এরকমটাই হবে।
... তাহলে আপনি হয়তো বিশেষ সার্ভে প্যানেলে যোগ দেওয়ার যোগ্য। এমন অনেক অনলাইন প্যানেল রয়েছে যেগুলো শুধুমাত্র সেই লোকেদের জন্য যারা কোনো স্বাস্থ্য প্রতিষ্ঠানে, প্রযুক্তি ক্ষেত্রে বানেতৃত্ব স্থানীয় পেশাদার অথবা কার্যনির্বাহী সংস্থায় কাজ করেন। যদি আপনি এইরকম কোনো একটা ক্ষেত্রে যোগ্য হন তাহলে সেই প্যানেল নির্বাচন করার বিষয়ে নিশ্চিত হোন যেটা আপনার মতো একজন পেশাদারকে খুঁজছে। যেহেতু শ্রণীগত চাহিদা অনুসারে যোগ্য লোক কম পাওয়া যায়, পেশাদাররা অনেক বেশি টাকা চান আর তাদের হাতে সবসময় সময় থাকে না তাই এই রকম সার্ভেতে টাকার পরিমাণ অনেক বেশি হয়।
কিছু সার্ভে কোম্পানী আপনাকে তাড়াতাড়ি টাকা পাঠানোর জন্যPayPal ব্যবহার করে।

অতিরিক্ত অফারগুলো

ClixSense
Helion Research